Sunday, 24 September 2017
ইভেন্ট হেডলাইন
×

Warning

Error loading component: com_languages, Component not found.

শিলাইদহে বিশ্বকবির ১৫৫তম জন্মবাষির্কী উপলক্ষ্যে তিনদিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালা উদ্বোধন

0
0
0
s2smodern
powered by social2s

খুলনা বিভাগীয় কমিশনার আবদুস সামাদ, অসাধারন চিন্তাবিদ ছিলেন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। ৮ মে ২০১৬ রবিবার সকালে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার শিলাইদহ কুঠিবাড়ীর রবীন্দ্র মঞ্চে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে তিনদিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধনকালে তিনি একথা বলেন। তিনি বলেন, সারা বিশ্বে ৬শ কোটি মানুষ। তাদের মধ্যে এককজন একেকরকম। কারও সাথে কারও কোন মিল নেই। সারা বিশ্ব অনুসন্ধান করে দেখা গেছে যা কিছু ভালো এই বাঙালীদের মধ্যে তা নিহিত রয়েছে। আর এই বাঙালী ছিলেন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। যার জন্ম না হলে বিশ্ববাসী পরিপূর্নতা লাভ করতে পারতো না। তিনি বলেন, কবিগুরু কাজের ক্ষেত্রে এত গভীর ও বিশাল যে তার কাছে যাওয়া সহজ নয়। তিনি মানুষের মনের যত প্রকার ভাব আছে তার লেখনি ও গানের মধ্য দিয়ে সব প্রকাশ করেছে। প্রকৃতিক প্রেমী কবি রবীন্দ্রনাথ প্রকৃতি ও পল্লীকে একসূত্রে গেঁথেছিলেন। তাই প্রকৃতির টানে বার বার ছুটে এসেছেন কুষ্টিয়ার শিলাইদহে।

জীবনের অনেক সময় তিনি কুষ্টিয়ার শিলাইদহের এই মাটিতে কাটিয়েছেন। রচনা করেছেন গীতাঞ্জলীর মত বিখ্যাত সব সাহিত্য কর্ম। যার পদচিহ্ন আজো কুষ্টিয়ার মাটি বুকে ধারণ করে রয়েছে। তিনি এই শিলাইদহের কুঠিবাড়ীতে বসেই নয়া কৃষি আন্দোলনের ডাক দিয়ে ছিলেন। কৃষকের আগামী ভবিষ্যতের কথা,তাদের উন্নয়নে তিনি জীবনের সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ন পাওয়া নোবেল পুরস্কারের টাকা দিয়ে কৃষকের ভাগ্যান্নয়নে সমবায়ের মাধ্যমে চাষ করতে কৃষি খামার চালু করেছিলেন। তাঁর এই উদার মানসিকতা চিরকাল স্মরনীয় হয়ে থাকবে। তিনি আরও বলেন, অফুরন্ত সম্পদ ভান্ডারের অধিকারী ছিলেন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মধ্যে। তাজমহলের অপরুপ সৌন্দর্য্য, হিমালয়ের অপরুপ দৃশ্য এবং প্রশান্ত সাগরের গভীরতার মতোই তার জ্ঞানের ভান্ডার ছিলো সমৃদ্ধ। তাই আসুন আজ পচিশে বৈশাখের এই দিনে রবীন্দ্রনাথকে মনের কোনে স্মরণ করি এবং রবীন্দ্রনাথকে জানি, শুনি এবং আলোকিত বাংলাদেশ গড়ে তুলি।

জেলা প্রশাসক সৈয়দ বেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রত্নতত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আলতাফ হোসেন, কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার প্রলয় চিসিম, জেলা জাসদের সভাপতি গোলাম মহসিন, সিভিল সার্জন ডা: নাজমুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কুমারখালী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সাহেলা আক্তার। আলোচনা করেন কুষ্টিয়া সরকারী মহিলা কলেজের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মাসুদুর রহমান ও রবীন্দ্র সম্মিলন পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার সভাপতি কবি আলম আরা জুই। অনুষ্ঠানের শুরুতেই জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করেন কুষ্টিয়া সরকারী বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। পরে প্রধান অতিথিসহ অন্যান্য অতিথিবৃন্দ বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মরণে ‘স্মরোণিকা’র মোড়ক উম্মোচন করেন। এরপর কুষ্টিয়া জেলা শিল্পকলা একাডেমীসহ বিভিন্ন শিল্পীগোষ্ঠিদের সদস্যরা রবীন্দ্রসঙ্গীত পরিবেশন করেন।-এস এম জামাল, কুষ্টিয়া